সাতকানিয়ার মক্কার বলীখেলার ১৩৯তম আসরে জীবন ও মাহাসন যৌথ চ্যাম্পিয়ন

boli-kela.jpg

ছবির ক্যাপশ্যান : সাতকানিয়ায় মক্কার বলী খেলায় তুমুল লড়াই চলছে জীবন ও মাহাসন বলীর মধ্যে।

মোঃ নাজিম উদ্দিন, দক্ষিণ চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:
দক্ষিণ চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার মাদার্শা ইউনিয়নে পাহাড়ঘেরা সমতল ভূমিতে জমজমাট মক্কার বলীখেলা দেখতে ২০ এপ্রিল শুক্রবার জড়ো হয়েছিল হাজারো মানুষ। উপজেলার ঐতিহ্যবাহী মক্কার বাড়ির পাহাড় ঘেরা মাঠে এ বলীখেলার ১৩৯তম আসর বসেছিল এবার। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আসা বলীদের শ্বাসরুদ্ধকর লড়াই চলছিল। অন্যদিকে জমে উঠেছিল হস্তশিল্প আর গ্রামীন খাবারদাবারের বেচাকেনা। এ রকম উৎসব উপলক্ষে উপজেলার আশপাশের কয়েক গ্রামের মানুষের বছরে হাতেগোনা দুয়েকবারই আসে। কক্সাবাজার, উখিয়া, চকরিয়া, বাঁশখালি, খুলনা ও মহেশখালী থেকে বলী এসেছিল এবারের আসরে। খেলার মূল আকর্ষন ছিল মহেশখালীর মো. জীবন বলী ও চকরিয়ার মো. মাহাসন বলী। দু’জনের মধ্যে তুমূল যুদ্ধ চলে অনেক্ষন। অবশেষে মক্কার বলী খেলায় দীর্ঘ লড়াইয়ে কেউ কাকে পরাজিত করতে না পারায় খেলার আয়োজক যৌথভাবে মো. জীবন বলী মাহাসনকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করে। মক্কার বলীখেলা উপলেক্ষ সপ্তাহব্যাপী চলছে গ্রামীন পন্যের মেলা। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মৃৎশিল্পীরা এসেছিল পসরা নিয়ে। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস পত্র, খাবার ও নানা ধরনের খেলনা বিকিকিনি হয়েছে এ মেলায়। বলীখেলা ছিল মেলার মূল আকর্ষণ শুক্রবার বিকেল ৩টায় আয়োজকরা ঢোল-বাজনার তালে তালে বলীদের সঙ্গে নিয়ে মাঠে নামেন। মুহুর্তের মধ্যে মক্কার বাড়ির মাঠ কানায় কানায় ভরে উঠে। দেখতে দেখতে লোকে লোকারণ্য হয়ে যায় মাঠ। জায়গা সংকুলান না হয়ে পাশের উচু পাহাড়ে এবং গাছের ডালে উঠে বসেছে অনেকে বলীখেলা উপেভাগ করার জন্য। খেলায় রানার্স আপ হন বাদশা। খেলার আয়োজক মাদার্শা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নাজমুল আলম বলেন, ১৩৮ বছর আগে তাঁর দাদা মোহাম্মদ আবদুল কাদের বক্স চৌধুরী বাঙ্গালী ঐতিহ্য আর কৃষ্টি ধরে রাখার জন্য এ খেলার আয়োজন করেছিলেন। তাঁর ধারাবাহিকতায় প্রতিবছর ৭ বৈশাখ এ খেলা অনুষ্ঠিত হয়। সাতকানিয়া, বাঁশখালি, লোহাগাড়া, চন্দনাইশ, পটিয়া, আনোয়ারা ও বোয়ালখালিসহ আশপাশের গ্রামে বাঁশবেত, মৃৎশিল্প, কৃষিপণ্য ও গৃহস্থালির নানা সামগ্রি বিক্রি হয় বলীখেলা উপলক্ষে বসা এ মেলায়। অনেকে মেলায় আসেন সারা বছরের ব্যবহার্য জিনিসপত্র সংগ্রহ করতে। নলুয়ার বাসিন্দা মো. সাবের বলেন, ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সবার মিলন মেলায় পরিনত হয় এ মেলা। আমি প্রতি বছরের মতো এবার মেলায় এসে কিছু নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস ক্রয় করি।

বলী খেলায় প্রধান অতিথি হিসাবে খেলা উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম-১৫ আসনের সাংসদ প্রফেসর আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামউদ্দিন নদভী । এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সাতকানিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান মোল্লা, সাতকানিয়া থানার ওসি (তদন্ত) মজিবুর রহমান, মাদার্শার চেয়ারম্যান আ. ন. ম. সেলিম উদ্দিন চৌধূরী, এওচিয়ার চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মানিক।

Top