রামুতে পরিবেশ অধিদপ্তরের মিথ্যা মামলায় জড়িতদের অব্যাহতির দাবী জানিয়েছে সুশীল সমাজ

download.png

দিদারুল আলম(জিসান) : 
রামু রশিদনগর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজী জানে আলমসহ এলাকার নিরহ লোকদের বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় হয়রানি করার গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরেজমিন এই প্রতিবেদক এলাকায় গিয়ে প্রত্যক্ষদর্শীদের সাথে আলাপকালে জানা যায়, দীর্ঘদিন যাবৎ রামু রশিদ নগর ইউনিয়নের সিকদার পাড়া এলাকার মৃত: নুরুল হক চৌধুরীর পুত্র আমিরুল আযম প্রভাব বিস্তার করে এলাকার সন্ত্রাসী কার্যকলাপ, ভূমিদস্যু এবং সাধারণ মানুষকে মিথ্যা মামলার জড়িয়ে মানহানিকর ঘটনায় লিপ্ত হওয়ার মত জঘন্য অপরাধ সংঘটিত করে যাচ্ছে বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে।
অভিযোগে জানা যায়, এলাকার চেয়ারম্যান, মেম্বার, মহিলা মেম্বারসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তি ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দরা জানান, দীর্ঘ বছরের মধ্যে কোন প্রকার পাহাড় কাটা হয়নি। অথচ তার অপকর্ম আড়াল করার জন্য উল্টো এলাকার নিরীহ লোকদের বিরুদ্ধে অহেতুক মামলা দায়ের করে হয়রানি করে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত।
এলাকাবাসীর সাথে আলাপকালে জানা যায়, পরিবেশ অধিদপ্তর ঘটনাস্থল পরিদর্শন না করে এলাকার একজন গন্যমান্য ব্যক্তি এবং রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হাজী জানে আলমসহ নিরীহ ব্যক্তিদের নামে পরিবেশের মামলা রুজু কিভাবে হয়? এলাকার সচেতন মহল অভিযোগে আরও জানান, ১৯৯৬ সালে আমিরুল আযম অস্ত্র মামলায় আটক হয়ে ৭ বছর সাজা ভোগ করে জেল থেকে বের হয়ে আরও বেশি বেপরোয়া হয়ে যায়। সে একজন চেক, প্রতারণা, নারী নির্যাতন মামলার মতো জঘন্য মামলর আসামী হওয়া স্বত্ত্বেও কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তর এর সাবেক পরিচালক সর্দ্দার শরিফুল ইসলামকে দিয়ে তার অন্যত্র চলে যাওয়ার মুহুর্তে তাকে ম্যানেজ করে বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫ (সংশোধিত ২০১০) এর ৬নং লংঘন করে একই আইনের ১৫(১) এর মাধ্যমে রামু থানায় একটি মিথ্যা ৩২৯নং মামলা রুজু করেন। যাহা ঘটনার সাথে বাস্তবের কোন মিল নেই।
জানা যায়, রশিদনগর ইউনিয়নের কাহাতিয়া পাড়া গ্রামের ২নং ওয়ার্ডের মৃত ছিদ্দিক আহমদের পুত্র হাজী জানে আলম, হাজী ফরিদুল আলম ও হাজী অহিদুর রহমান ৪টি এবং আমিরুল আযমের আপন বড় ভাই সরওয়ার ৫টি ও একই ইউনিয়নের মৃত আব্বাসের পুত্র আবদুর রশিদের নামে ২টি, নাজির হোছনের পুত্র আজিজ, হামিদুর এর নামে ৩টি, নাজির হোছেন ২টি, মৃত জাহাঙ্গীরের নামে দুটি এবং জয়নাল এর নামে ৩টি, রাসেলের নামে ২টি, আবদুল করিমের ছেলে আবদুর রহমানের নামে ৫টি, মৃত পুনিন্দ্র চন্দ্র শীল এর ছেলে সুধি রাম শীল এর নামে ২টি, যদু রাম শীল এর নামে ২টি, অপর ৬৩/২০১৬ইং রুজু করে প্রতিনিয়ত থানায়/আদালতে হয়রানি করে যাচ্ছে।

তার থেকে এলাকার মুক্তি চেয়ে প্রশাসনের নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে সুষ্ঠু বিচার দাবী করেছেন  এলাকার সচেতন মহল ও বিভিন্ন সংগঠন।

এদিকে রামু উপজেলা আওয়ামী লীগ ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগসহ সুশীল সমাজ অবিলম্বে পরিবেশ আইনের মামলাসহ হয়রানীমূলক অন্যান্য মামলা থেকে রশিদনগর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হাজী জানে আলমসহ অন্যান্যদের মামলা থেকে নিঃশর্ত মুক্তি ও মামলা হতে অব্যাহতি দাবী করেছেন।

Top