হাজার হাজার মানুষকে পান্তা-ইলিশ খাইয়ে বর্ষবরণ শার্শা-বেনাপোলে

received_10156418827509365.jpeg


মোঃ রাসেল ইসলাম,বেনাপোল প্রতিনিধি :

প্রতিবারের ন্যায় এবারও শার্শা উপজেলা প্রশাসন ও বেনাপোল পৌরসভা বিভিন্ন পেশার ২০ হাজার নারী, পুরুষকে পান্তা-ইলিশ খাইয়ে বরণ করে নেয় নতুন বাংলা বর্ষকে। নববর্ষে মঙ্গল বার্তা নিয়ে বের হয়েছে মঙ্গল শোভাযাত্রা। আবহমান বাংলার ঐতিহ্যগাথা সার্বজনীন উৎসবের দিন পহেলা বৈশাখকে স্বাগত জানাতে ব্যাপক আয়োজন করে শার্শা উপজেলা পরিষদ ও বেনাপোল পৌর সভা। শার্শায় উপজেলা চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম মঞ্জু ও বেনাপোলে পৌর মেয়র আশরাফুল আলম লিটন এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন। সকাল ৮টায় উপজেলা সদরে ও বেনাপোল বন্দরে মঙ্গল শোভাযাত্রার বর্ণ্যাঢ্য র‌্যালি বের হয়। পহেলা বৈশাখের এই অনুষ্ঠানে আবহমান বাংলার চিরায়িত রুপ সজ্জা ও দেশজ সংস্কৃতি উপস্থাপন করা হয়। ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, গান, কবিতা ও পান্তা ভাতের আয়োজন।
সামনে পেছনে ঢাকের বাদ্যের তালে তালে নৃত্য আর হাতে হাতে ধরা বড় আকারের বাহারী মুখোশ। গরুর গাড়ি, টেপা পুতুল আর বাঁশের কাঠামোতে মাছ পাখি ফুটে উঠেছে বাংলার ইতিহাস ঐতিহ্য। সেই প্রতীক ধারন করেছে সাম্প্রতিক ঘটনা প্রবাহের চিহৃ, অমঙ্গলের আধার ঘোচানোর প্রত্যয়। বৈশাখের লাল-সাদার ভিড়ে সব বয়সের সব শ্রেণী পেশার হাজারো মানুষ। রাজনৈতিক কোলাহলমুক্ত মঙ্গল শোভাযাত্রায় নববর্ষের ব্যানার ফেস্টুনসহ রং বেরং এর পোশাকে গ্রামবাংলার অতিত ঐতিহ্য ফুটিয়ে তোলে ছেলে মেয়েরা। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মঙ্গল শোভাযাত্রায় এনে দেয় বাঙ্গালী সংস্কৃতির আদি উৎসব, যা এই ডিজিটাল যুগেও শেকড়ের সন্ধানে ছোট বড় সবার মাঝে অনুপ্রেরনা জোগায়। স্কুল কলেজসহ বিভিন্ন সংগঠন রংঙে ঢংঙে গা গ্রামের আদলে সেজে ব্যানার ফেস্টুন সহকারে মঙ্গল শোভা যাত্রা বর্ণ্যাঢ্য র‌্যালিতে অংশগ্রহন করেন।
শার্শায় মঙ্গল শোভাযাত্রায় উপস্থিত ছিলেন নির্বাহী অফিসার পুলক কুমার মন্ডল, সহকারী কমিশনার (ভুমি) আব্দুল ওয়াদুদ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আলেয়া ফেরদৌস, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম মসিউর রহমানসহ উপজেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ উপজেলার সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারিসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার হাজারো মানুষ। বেনাপোলে অনুষ্ঠানে জেলা, উপজেলা ও পৌর আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দসহ পোর্ট থানার ওসি অপূর্ব হাসান। পুরো দিনটিকে আনন্দমুখর করে রাখতে সারাদিন চলবে কবিতা আবৃতি, সঙ্গীতানুষ্ঠান, নাচের আয়োজন। শার্শা ও বেনাপোলের বৈশাখি অনুষ্ঠানে প্রায় ২০ হাজার মানুষকে পান্তা ভাত, ডাল, আলু ভর্তা দিয়ে আপ্যায়িত করা হয়। বিকেলে বেনাপোল বল্ডফিল্ডে রয়েছে দু‘বাংলার শিল্পীদের সঙ্গীতানুষ্ঠান। #

Top