কোম্পানীগঞ্জে পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে শালী’র বসতঘর ভাংচুর ও লুটপাট করলো দুলাভাই

received_642402269424231.jpeg

মোঃ ওয়ালিদ সাকিব, কোম্পানীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে বসতঘর হামলা,মারধর,ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নে বিত্তশালী দুলাভাই কর্তৃক দরিদ্র শালীর ২০ বছর যাবত বসবাসরত বসতঘর ভাংচুর ও লুটপাট হয়।

অভিযুক্ত দুলাভাই মুছাপুর ইউপির ০৯নং ওয়ার্ডের মৃত নূর আহমদের ছেলে। ভুক্তভোগী শালী একই এলাকার বাসিন্দা শাহাব উদ্দিনের স্ত্রী মনোয়ারা খাতুন।

এ ব্যাপারে মুছাপুর ০৯নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আব্দুল হাই জানান, রাজ্জাক লন্ডনী কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে দরিদ্র মনোয়ারার বাড়িতে হামলা চালিয়ে ঘর ভাঙচুর করে। এসময় আমি এবং স্থানীয়রা বাধা দিলে রাজ্জাক আমাকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে। আমি রাজ্জাক লন্ডনীকে বসতঘর ভাংচুর নিষেধ করলে, সে আমাকে জানায়,সে পুলিশের নির্দেশে ভাংচুর করছে। এ সময় আমার মুঠোফোনে কোম্পানীগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) এর সাথে রাজ্জাক লন্ডনীর কথা হয়। এ সময় রাজ্জাক লন্ডনীকে ওসি (তদন্ত) বসতঘর ভাংচুর ও লুটপাট করতে নিষেধ করে। কিন্তু রাজ্জাক উল্টো ওসি (তদন্ত) এর নির্দেশ উপেক্ষা করে দাবি করে সে তাদের পুলিশের নির্দেশে বসতঘর ভাংচুর করছে। পরে থানায় ফোন দিলে পুলিশ আসার আগেই তারা পালিয়ে যায়।

অভিযোগ সূত্রে আরো জানা যায়, রাজ্জাক লন্ডনী,শালী মনোয়ারা এর বসতভিটার জায়গা তার টাকায় ক্রয় করা বলে দাবি করতেন। এ রেশধরে শালীর পরিবারর সাথে বেজায় খারাপ ব্যবহার করতেন। অবশেষে ক্রোধান্বিত হয়ে শালীর পরিবার দুলাভাই কে তার বসতঘরের জায়গার পাওয়ার অব অ্যাটর্নি দেয়। পরবর্তিতে এ ঘটনায় কোম্পানীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করে রাজ্জাক লন্ডনী। এই মামলায় মনোয়ারা খাতুন এবং তার ১৪ বছর বয়সী ছেলে আলী আজগর কে গ্রেফতার করে পুলিশ।
কান্নাজড়িত কন্ঠে ভুক্তভোগী মনোয়ারার ৬ষ্ঠ শ্রেণী পড়ুয়া মেয়ে সালমা আক্তার অভিযোগ করেন,শনিবার ৭এপ্রিল সকালে লন্ডনী রাজ্জাক তার দলবল নিয়ে ঘর ভাংচুরের পর ঘরের টিন সহ অন্যান্য মালামাল লুট করে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় ভুক্তভোগী মনোয়ারা বেগমের ঘরের চালের টিন নেই। ঘরের ভিতরের বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাঙ্গা।

অভিযুক্ত রাজ্জাক লন্ডনীর বাড়িতে গিয়ে তাকে পাওয়া যায় নি। তার সাথে যোগাযোগের জন্য মুঠেফোনের নাম্বার চাইলে তার পরিবারের লোকজন জানান,রাজ্জাক লন্ডনী মোবাইল ব্যবহার করেন না। তারপর অনেক চেষ্টা করেও রাজ্জাক লন্ডনীর বক্তব্য পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জানান, রাজ্জাক লন্ডনী মোবাইল ব্যবহার করে । বর্তমানে মোবাইল বন্ধ রেখেছে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সৈকত দাশ গুপ্ত জানান, কোম্পানীগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো.রবিউল হক এর নির্দেশে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘর ভাংচুর অবস্থায় দেখতে পায়। এসময় অভিযুক্ত পক্ষ কে ঘর পুনরায় স্থাপন করার নির্দেশ দিই এবং ভুক্তভোগীদের আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য বলি।

এ বিষয়ে কোম্পানীগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো.রবিউল হক জানান, রাজ্জাক লন্ডনী এভাবে কাউকে হামলা লুটপাট এবং ভাংচুর চালিয়ে বসত ঘর থেকে উচ্ছেদ করতে পারেনা। কারণ কোন পরিবারকে বসতঘর থেকে উচ্ছেদ করার আইনি প্রক্রিয়া আছে। দেশে আইন ও আদালত আছে। এ উচ্ছেদ প্রক্রিয়া দেশের আইন ও শাসন পরিপন্থী।

Top