সালমানের কয়েদি নম্বর দেয়া হয়েছে ১০৬

salman.jpg

জামিন পেলেন না সালমান খান। আরও একটি রাত যোধপুরের কারাগারে কাটাতে হবে সালমান খানকে। শনিবার পর্যন্ত স্থগিত হওয়া হরিণ শিকার মামলায় জামিন পাবেন কি না সালমান খান, তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে শনিবার পর্যন্ত। আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় সালমান খানের জামিনের আবেদনের শুনানি শুরু হয়। ২০০৬ সালেও এই যোধপুর কারাগারে পাঁচরাত কাটাতে হয়েছিল সালমানকে। গালফ নিউজ ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতের সেশন আদালতের বিচারক রবীন্দ্র কুমার জোশি গণমাধ্যমকে জানান, আদালত ৭ এপ্রিল পর্যন্ত মুলতবি করা হয়েছে। অর্থাৎ আগামীকাল আবারও শুরু হবে সালমানের জামিন আবেদনের শুনানি। এসময় সালমানের আইনজীবী মহেশ ভোরা বলেন, ‘আমরা সালমানের জামিন আবেদন আদালতে পেশ করেছি। আসলে যে প্রত্যক্ষদর্শীর কথা তারা বলছে, সেটা বিশ্বাসযোগ্য নয়। আদালত শুধু একটি প্রত্যক্ষদর্শীর সাক্ষীর ওপর ভিত্তি করে সালমানকে দোষী সাব্যস্ত করেছেন। আদালতে সালমানের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা রক্ষী শেরার সঙ্গে হাজির হন অভিনেতার দুই বোন আলভিরা এবং অর্পিতা। কিন্তু, শুনানি শুরু হওয়ার পর পরই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ করলেন সালমান খানের আইনজীবী মহেশ ভোরা। তিনি অভিযোগ করেন, সালমান খানের জামিনের আবেদনের শুনানির সময় যাতে তিনি হাজির না হন, তার জন্য হুমকি দেয়া হয় তাকে। পাশাপাশি মহেশ ভোরাকে হুমকি দিয়ে এসএমএসও পাঠানো হয় বলে অভিযোগ। কারাগারে ২ নম্বর ওয়ার্ডে রয়েছেন সালমান। একই ওয়ার্ডে রয়েছেন ধর্ষণ মামলার আসামি আশারাম বাপুরে, ভানওয়ারি দেবী হত্যা মামলার আসামি মালখান সিং ও মুসলিম অভিবাসী হত্যার আসামি সাম্ভু লাল রেগার। সালমানকে রাখা হয়েছে ২ নম্বর ওয়ার্ডের একটি আলাদা কামরায়। দুই স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে সালমানের জন্য। সালমানের কয়েদি নম্বর দেয়া হয়েছে ১০৬।

Top