জামালগঞ্জে শ্রমিকলীগ নেতা’কে হয়রানির অভিযোগ

download-7.jpg
মো:আখতারুজ্জামান তালুকদার
জামালগঞ্জ প্রতিনিধি::
জামালগঞ্জ উপজেলার উত্তর ইউনিয়ন জাতীয় শ্রমিকলীগের আহব্বায়ক কামিনীপুর গ্রামের মৃত হানিফ শাহ পুত্র গাউছুল আজম কে একটি মহল বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করার লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে।
রবিবার (২৫-মার্চ) জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহি অফিসার ও নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন গাউছুল আজম।
অভিযোগে একই গ্রামের মৃত খোয়াজ আলীর পুত্র (১)মো:জাকির হোসেন,(২) আক্তার হোসেন,(৩)মনির হোসেন সহ একই গ্রামের নুর আলীর পুত্র (৪)আল-অামিন কে অভিযুক্ত করা হয়েছে।
লিখিত অভিযোগে গাউছুল আজম বলেন,আমি জামালগঞ্জ উত্তর ইউনিয়নের জাতীয় শ্রমিকলীগের আহবায়ক ও উপজেলা কমিটির সদস্য।প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়, অাশ্রয়ন-২ প্রকল্পের মাধ্যমে অসহায় ব্যাক্তিদের জন্য যাদের বাড়ী ঘর নেই এমন লোকজনের ঘর নির্মানের জন্য উত্তর ইউনিয়ন পরিষদে একটি চিটি আসে।সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান রজব আলী’র মৌখিক নির্দেশে আমার গ্রামের অসহায় লোকজনের একটি তালিকা করে চেয়ারম্যান কে দেই।সম্প্রতি এই বিষয়টি নিয়ে আমার বিরুদ্ধে একটি মহল অর্থ আত্নসাধের অভিযোগ করেছে।অভিযোগের বিষয়টি সংবাদ পত্রেও এসেছে।যা সম্পূর্ণ মিথ্যা ভিত্তিহীন ও উদ্ব্যেশ্য প্রনোদিত বলে দাবি করেন অভিযোগ কারী।
এ ব্যাপারে জামালগঞ্জ উত্তর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রজব অালী বলেন,আশ্রায়ন-২ প্রকল্পের নাম করে কারো কাছ থেকে টাকা অাত্নসাধ করেছে আমার জানা নেই।এব্যাপারে কেউ আমার কাছে কোন অভিযোগ করেনি।খোজ নিয়ে যতটুকু জেনেছি দুটি পক্ষর পারস্পরিক প্রতিহিংসার দরুন এই সমস্ত অভিযোগ তুলা হচ্ছে।
গাউছুল আজম লিখিত অভিযোগে আরোও বলেন,উল্লেখিত অভিযুক্তদের সাথে দীর্ঘদিন যাবৎ আমার জায়গা জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে।অভিযুক্তগণ সরকার বিরুধী রাজনৈতিক দলের সাথে জড়িত থাকিয়া আমিসহ আমার অা’লীগ পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপপ্রচার চালিয়ে আসছে।
অভিযুক্তকারী জাকির হোসেন বিভিন্ন তারিখ ও সময়ে আমাকে একা পাইয়া বলে,হাওরে বিভিন্ন পিআইসির মাধ্যমে বাঁধের কাজ চলছে।আমি যেন এই সমস্ত পিআইসি হইতে টাকা সংগ্রহ করে অভিযুক্ত জাকির কে দেই।অামি অপারগতা প্রকাশ করিলে অভিযুক্ত জাকির আমাকে বিভিন্ন ভাবে ক্ষতিসাধনের হুমকি প্রদান করে।সে আরও বলে যদি তার কথামত না চলি তবে বিভিন্ন প্রচার মিডিয়ায় আমার নামে লেখালেখি করিয়া সম্মান নষ্ট করবে।
ইতিপূর্বে জাকির আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেছে।
অভিযোগে আরও বলা হয়, অভিযুক্ত জাকির ও মনিরের বিরুদ্ধে পূর্বে আমি মামলা দায়ের করি।যার নম্বর ০৪/-তারিখ ০২/০১/১৮ চলমান রয়েছে।এরপর হইতে অভিযুক্তগণ আমাকে বিভিন্ন ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করার পায়তারা করছে।
অভিযোগে উল্লেখ করা হয়,গত ১০-মার্চ ২০১৮ তারিখ বিকাল ৫ টায় আমার বসত বাড়ির সামনের রাস্তায় অভিযুক্তগণ আমাকে পেয়ে বলে যে,ইদানিং আমি ভাল টাকা পয়সা রোজগার করিতেছি আমি যেন অভিযুক্ত সকলকে প্রতিমাসে ৫০ হাজার টাকা করে চাঁদা প্রদান করি।না হয় অভিযুক্ত সকল আমাকে মারধর,খুন,গুমসহ মিথ্যা অপপ্রচার করিয়া আমার সম্মানহানি করিবে।
এলাকার গণমান্য লোকদের বিষয়টি অবগত করেছি। অভিযুক্তগণ আমার ও পরিবারের লোকজনকে অব্যাহত ভাবে হুমকি দিয়ে আসছে।আমিসহ আমার পরিবার নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভূগিতেছি।এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে উপজেলা নির্বাহি অফিসার ও গত ২৪/০৩/১৮তারিখে অফিসার ইনচার্জ জামালগঞ্জ থানা বরাবরে অভিযোগ দায়ের করেছি।
অভিযোগের বিষয়ে অভিযুক্ত জাকির হোসেন বলেন,গাউসুল আজম সহ কয়েক জনের বিরুদ্ধে আমি অাশ্রয়ন-২ প্রকল্পে নামে অর্থ আত্নসাধের অভিযোগ করায় প্রতিহিংসা মুলক ভাবে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করেছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহি অফিসার শামীম আল ইমরান বলেন,অভিযোগ পেয়েছি।তদন্ত করা হচ্ছে।তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর ব্যাবস্হা নেওয়া হবে।
Top