চিলাহাটিতে এলডিসি বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা

CH1.jpg

বখতিয়ার ঈবনে জীবন,ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ

স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি অর্জনের ঐতিহাসিক সাফল্য উদযাপন উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (২২ মার্চ) চিলাহাটি সহ সারাদেশে আনন্দ শোভাযাত্রা বের হয়। চিলাহাটির বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চিলহাটি সরকারী ডিগ্রী কলেজ, চিলাহাটি মার্চেন্টস্ উচ্চ বিদ্যালয়, চিলাহাটি জে.ইউ ফাযিল বিএ মাদ্রাসা, স্থানীয় প্রশাসন এ শোভাযাত্রায় অংশ নেয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে আলোচনা সভা, চিত্র প্রদর্শনী, ছবি আঁকা, রচনা প্রতিযোগিতা এবং সাস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। উন্নয়নশীল দেশের কাতারে ওঠার যোগ্যতা অর্জনের ঐতিহাসিক সাফল্য উদযাপন উপলক্ষে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে ছাত্র, শিক্ষক, অভিভাবকদের নিয়ে আনন্দ শোভাযাত্রা, চিত্র প্রদর্শনী ছবি আঁকা, রচনা প্রতিযোগিতা, সাস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং শিক্ষার্থী-অভিভাবকসহ আলোচনা অনুষ্ঠান হয়।

বিশ্ব ব্যাংকের বিবেচনায় বাংলাদেশ ২০১৫ খ্রিস্টাব্দের জুলাই মাসে নিম্ন আয়ের দেশ থেকে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়। এখন জাতিসংঘের মাপকাঠিতেও বাংলাদেশের উত্তরণ ঘটছে। জাতিসংঘ সদস্য দেশগুলোকে স্বল্পোন্নত (এলডিসি), উন্নয়নশীল ও উন্নত এ তিন পর্যায়ে বিবেচনা করে। ১৯৭৫ খ্রিস্টাব্দ থেকে স্বল্পোন্নত দেশের অন্তর্ভুক্ত বাংলাদেশ মাথাপিছু আয়, মানবসম্পদ সূচক ও অর্থনৈতিক ঝুঁকি সূচক (ইভিআই) এই তিন শর্ত পূরণ করে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উঠতে যাচ্ছে।

জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক কাউন্সিল (ইকোসক) এর মানদ- অনুযায়ী উন্নয়নশীল দেশ হতে একটি দেশের মাথাপিছু আয় হতে হয় কমপক্ষে ১২৩০ মার্কিন ডলার, জাতিসংঘের হিসাবে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় এখন ১২৭৪ ডলার। তবে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর হিসাবে, মাথাপিছু আয় এখন ১৬১০ ডলার। ইকোসকের মানবসম্পদ সূচকে উন্নয়নশীল দেশ হতে ৬৪ পয়েন্টের প্রয়োজন হলেও বাংলাদেশের আছে ৭২।
অর্থনৈতিক ঝুঁকির ক্ষেত্রে বাংলাদেশের পয়েন্ট এখন ২৫ দশমিক ২। এই পয়েন্ট ৩৬ এর বেশি হলে এলডিসিভুক্ত হয়, ৩২ এ আনার পর উন্নয়নশীল দেশের যোগ্যতা অর্জন হয়।

Top